‘সংসদ বাংলাদেশ টেলিভিশন’-এ বিষয়ভিত্তিক ক্লাস পরিচালনার কর্মসূচি গ্রহণ ** JSC & PECE 2019 Result***HSC Result - 2019 ** সর্বোচ্চ জিপিএ-৫ পেয়ে নীলফামারীতে শীর্ষে ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ, সৈয়দপুর
---------------------------

Notice Board

Code of Conduct for Students

সৈয়দপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এ্যান্ড কলেজ রংপুর বিভাগের তথা দেশের উত্তরাঞ্চলের একটি ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সক্রিয় তত্ত্বাবধানে অত্যন্ত সুশৃঙ্খলভাবে পরিচালিত হয়ে আসছে। একটি সুশৃঙ্খল ও সুশীল জাতি গঠনে এ ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গৌরবময় ভূমিকা সর্বজনবিদিত। গৌরব ও ঐতিহ্যের এ চলমান ধারাকে আরো গতিশীল ও সমুন্নত রাখতে হলে শিক্ষার্থীদের মধ্যে শৃঙ্খলা ও নিয়মানুবর্তিতার সার্বক্ষণিক অনুশীলন অত্যন্ত অপরিহার্য। উন্নত শিক্ষার পরিবেশ বজায় রাখার স্বার্থে ছাত্র-ছাত্রীদেরকে সকল প্রকার শৃঙ্খলা পরিপন্থী আচরণ থেকে বিরত থাকতে হবে এবং প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নকালে নিম্নলিখিত অবশ্য করণীয় ও বর্জনীয় বিষয়গুলো মেনে চলতে হবে।

১। যথাসময়ে (গ্রীষ্মকালীন ও শীতকালীন সময়সূচি অনুযায়ী) প্রতিষ্ঠানে উপস্থিত হওয়া এবং প্রাত্যহিক সমাবেশে অংশগ্রহন করা।
২। যথাযথ ইউনিফরম পরিধান করে প্রতিষ্ঠানে আসা ( নির্ধারিত জুতা, মোজা, বেল্ট, ব্যাজ, নেমপ্লেট, আইডি কার্ড ইত্যাদিও ইউনিফরমের অংশ)। পরিষ্কার ও ইস্ত্রি করা পোশাক পরিধান করা এবং শার্ট ইন করা। শীতকালে ছাত্ররা অবশ্যই নির্ধারিত শীতকালীন পোশাকের সাথে টাই পরবে।
৩। প্রত্যেক ছাত্র-ছাত্রীকে সোল্ডার এ্যাপুলেট ব্যবহার করতে হবে। হাউস কালার অনুযায়ী সোল্ডার এ্যাপুলেটের কালার নির্ধারিত হবে।
৪। লেজার পিরিয়ডে এবং টিফিন পিরিয়ডে যত্রতত্র বিশৃঙ্খলভাবে বিচরণ না করে লাইব্রেরি, কমনরুম ও ক্যান্টিন সুবিধা গ্রহন করা। খেলার মাঠে অথবা পি.টি. ক্লাসে শৃঙ্খলা বজায় রাখা। ছুটির পর অকারণে ক্যাম্পাসে অবস্থান না করা বা অযথা ঘোরাঘুরি না করা। ছুটির পরে শিক্ষার্থীরা নিজ নিজ আবাসস্থলে সরাসরি প্রত্যাবর্তন করবে।
৫। শ্রেণিকক্ষে অবস্থানকালে লেখাপড়ায় মনোযোগী হওয়া, ক্লাসের কাজ ও বাড়ির কাজ যথাযথভাবে সম্পন্ন করা এবং তা সংশ্লিষ্ট বিষয় শিক্ষককে দেখানো। দুই পিরিয়ডের মধ্যবর্তী সময়ে নিজ নিজ আসনে অবস্থান করা।
৬। কমপক্ষে একটি এবং সর্বাধিক তিনটি সহপাঠ্যক্রমিক কার্যক্রম ও খেলাধুলায় অবশ্যই জড়িত থাকা এবং নিয়মিত অংশগ্রহন করা।
৭। প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ কর্তৃক নির্ধারিত সকল পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করা।
৮। রুটিন মাফিক সকল তত্ত্বীয় ও ব্যবহারিক ক্লাসে উপস্থিত থাকা।
৯। ছুটি ভোগ করার পূর্বে আবেদনপত্রের মাধ্যমে তা অনুমোদন করিয়ে নেয়া। আকস্মিক অসুস্থতা/সংগত কারণে ছুটি ভোগ করলে, সে ক্ষেত্রে উপস্থিতির দিন অভিভাবক কর্তৃক স্বাক্ষরিত আবেদনপত্র দাখিল করতে হবে। প্রতিষ্ঠানে আসার পর ছুটির প্রয়োজন হলে নার্সারি থেকে ১২শ শ্রেণির ছাত্র-ছাত্রীরা শ্রেণিশিক্ষকের মাধ্যমে মোবাইলে অভিভাবকের সাথে যোগাযোগ করে শ্রেণিশিক্ষকের সুপারিশসহ ছুটির দরখাস্ত উপাধ্যক্ষের নিকট জমা দিবে।
১০। নতুন ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীদের ক্লাস শুরুর ০৭ দিনের মধ্যে ইউনিফরম তৈরি করতে হবে।
১১। চুল, দাঁত ও নখ বিশেষভাবে পরিষ্কার রাখা। নিয়মিত গোসল করা এবং শারীরিক দুর্গন্ধ এড়ানোর ব্যাপারে সতর্ক থাকা।
১২। ছাত্রদের চুল ছোট রাখা (চুলের দৈর্ঘ্য এক ইঞ্চির বেশি হবে না এবং তা কানের পাতা স্পর্শ করবে না ও চিপ ছোট হবে)। ছাত্রীরা চুল দুই বেণী/ ঝুঁটি করবে।
১৩। লাইব্রেরি ক্লাসে উপস্থিত থাকা এবং অবসর নসময়ে লাইব্রেরি ওয়ার্ক ও পুস্তক লেন-দেন করা।
১৪। অভিভাবক দিবসে নিজ নিজ অভিভাবকের উপস্থিতি নিশ্চিত করা এবং প্রয়োজনবোধে শ্রেণিশিক্ষক/উপাধ্যক্ষ/অধ্যক্ষের সাথে অভিভাবকের যোগাযোগে সহযোগিতা করা।
১৫। শ্রেণিশিক্ষক/বিষয়শিক্ষক ডায়েরিতে মন্তব্য লিখলে তা অবশ্যই অভিভাবককে অবহিত করে পুনরায় সংশ্লিষ্ট শ্রেণিশিক্ষক/বিষয়শিক্ষককে দেখানো।
১৬। ছেলেদের চুল এক ইঞ্চি অপেক্ষা বড় রাখা কিংবা মাথা ন্যাড়া করা (অসুস্থতা বা ধর্মীয় কারণ ব্যতীত) যাবে না।
১৭। মেয়েদের চুল খোলা রাখা, চুল পাম্প করা বা কোনো প্রকার রঙ করা / চোখের রঙ পরিবর্তনের জন্য কসমেটিক লেন্স ব্যবহার করা যাবে না।
১৮। কোনো প্রকার অলংকার ফ্রেন্ডশীপ ব্যান্ড, মাথায় আকর্ষণীয় / রঙচঙ্গে ক্লিপ বা ব্যান্ড, নূপুর, ঝুলন্ড দুল, আংটি ইত্যাদি) ব্যবহার করা যাবে না।
১৯। নখ বড় রাখা, নেইল পালিশ এবং হাতের ওপর মেহেদি দেয়া। লিপস্টিক, রুজ বা এ ধরনের কোনো প্রকার প্রসাধনী ব্যবহার করা (কেবল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহনকারীর অনুমতি পেতে পারে) যাবে না।
২০। ক্যাম্পাসের ভেতরে বা বাহিরে ধূমপান করা, পান খাওয়া, মাদক দ্রব্য সেবন বা এ জাতীয় কোনো অনাকাঙ্খিত দ্রব্য গ্রহন করা বা সঙ্গে রাখা যাবে না।
২১। প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে কোন প্রকার রাজনৈতিক কর্মকান্ডে অংশগ্রহন করা যাবে না।
২২। প্রতিষ্ঠানের চেয়ার, টেবিল, ডেস্ক, জানালা, টয়লেট ফিটিংস ইত্যাদি ভাঙ্গা/নষ্ট করা যাবে না। (কোন ধংসাত্মক কাজে জড়িত শিক্ষার্থীর পরিচয় পাওয়া গেলে তাকে জরিমানা আদায়সহ প্রতিষ্ঠান থেকে বহিষ্কার করা হবে।)
২৩। ডেস্ক, নোটিশ বোর্ড/হোয়াইট বোর্ড, দেয়াল, টয়লেট ইত্যাদিতে আজেবাজে বা আপত্তিকর কোনোকিছু লেখা এবং পায়ের ছাপ দেয়া যাবে না।
২৪। ইভটিজিং নিষিদ্ধ।

বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ শিক্ষার্থীকে যে কোনো সময়ে যে কোনো প্রয়োজনে (ক্লাস, কোচিং ক্লাস, গ্রুপ কোচিং, সহপাঠ্যক্রমিক কার্যাবলী ইত্যাদি) প্রতিষ্ঠানে প্রবেশকালে-
১। তাকে নির্ধারিত পোশাক পরিধান করতে হবে।
২। পরিচয় পত্র সাথে রাখতে হবে এবং গলায় ঝুলিয়ে রাখতে হবে।
৩। কোন ক্রমেই মোবাইল ফোন সঙ্গে রাখতে পারবে না।
এই আদেশ অমান্যকারী শিক্ষার্থীকে প্রতিষ্ঠান থেকে বহিষ্কার করা হবে।